শিশু জন্মদানকে উৎসাহিত করবে চীন

কিশোর বাংলা প্রতিবেদন: চীনের পরিবার পরিকল্পনা সংস্থা প্রজনন স্বাস্থ্য ও শিশুজন্ম এবং সন্তান নেয়ার ব্যাপারে জনগণের আগ্রহ বাড়াতে সাহায্য প্রদান করবে। এছাড়া শিশু লালন-পালনের জটিলতা কমানোর বিষয়ে সহায়তা প্রদানের ধারাও অব্যাহত রাখবে।

বেইজিংয়ে এক কর্মশালায় এ সংস্থার উপ-প্রধান ওয়াং পিয়ান বলেন, প্রসব ব্যথা, শিশু লালন-পালন ও শিক্ষার উচ্চ ব্যয় ও কিন্ডারগার্টেনের স্বল্পতা চীনের অনেক বাবা-মা’র সন্তান নেয়া থেকে বিরত থাকার প্রধান কারণ।

চীনে বয়স্ক লোকের সংখ্যা দ্রুততার সাথে বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশটি বিবাহিত যুগলকে ২০১৬ সাল থেকে দুই সন্তান নেয়ার অনুমতি দিয়েছে। আর এই অনুমতি দেয়ার মধ্যদিয়ে চীনে দশকের পর দশক ধরে চলা এক সন্তান নীতির অবসান ঘটে। ওয়াং বলেন, ২০১৯ সালে তিন বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য সংস্থাটি শিশু লালন-পালন ও শিশুর দ্রুত বেড়ে ওঠার ক্ষেত্রে আরো বেশী সেবা দেবে।

২০১৮ সালে চীনের মোট ২৮ টি নগরীতে শিশু জন্মদানের জন্য সহায়তা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। নব দম্পতিদের মানসম্পন্ন ও সুবিধাজনক সেবা প্রদানে এবং তিন বছরের কম বয়সী শিশুর বেড়ে ওঠার প্রশিক্ষণ দিতে এসব কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়।

২০১৯ সালে এ সংস্থা আরো অনেক সেবা কেন্দ্র স্থাপন করবে। জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন জানায়, ২০১৭ সালে চীনের বিভিন্ন হাসপাতালে এক কোটি ৭৫ লাখ ৮০ হাজার শিশু জন্ম নেয়। এদের মধ্যে ৫১ শতাংশ শিশু তাদের পরিবারের দ্বিতীয় সন্তান ছিল।