শিশুর হাতে গাড়ি, কারাগারে ১০ অভিভাবক

কিশোর বাংলা প্রতিবেদন: অপ্রাপ্তবয়স্ক সন্তানদের গাড়ি চালাতে দিয়ে কারাগারে গেলেন ১০ অভিভাবক। এসব অভিভাবককে এক দিনের জন্য এ দণ্ড দেওয়া হয়। ভারতের হায়দরাবাদ শহরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে বিবিসির এক খবরে বলা হয়।
পুলিশ জানায়, একই কারণে গত মাসে ৩৫ অভিভাবককে কারাগারে পাঠানো হয়েছিল।
অভিভাবকদের কয়েকজন বিবিসিকে বলেন, নাবালক সন্তানকে গাড়ি চালাতে দিলে যে অভিভাবকদের দায়ী করা হবে, এ আইন সম্পর্কে তাঁরা জানতেন না।
পুলিশ জানায়, গাড়ি বা মোটরসাইকেল চালানো থেকে অপ্রাপ্তবয়স্কদের দূরে রাখতে শহর কর্তৃপক্ষ এ উদ্যোগ নিয়েছে।
শাকিল আহমেদ নামের এক অভিভাবক বলেন, ‘আমি এ আইন সম্পর্কে জানতাম না। আমার ১৭ বছরের ছেলে মোটরসাইকেল নিয়ে শিক্ষকের কাছে পড়তে গিয়েছিল। আর এ জন্য আমাদের কারাগারে যেতে হয়েছে।’
একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, অভিভাবকদের এক দিন বা দুই দিনের জন্য কারাগারে পাঠানো হচ্ছে। এখন অভিভাবক তাঁদের সন্তানদের গাড়ি বা মোটরসাইকেল চালাতে দেওয়ার আগে একবার চিন্তা করবেন।
একজন পুলিশ কর্মকর্তা বিবিসিকে বলেন, ‘গত দুই মাসে গাড়ি চালাতে গিয়ে চার শিশুর মৃত্যু হয়েছে। কম বয়সে গাড়ি চালানোর অভিযোগে আমরা এক হাজার জনকে অভিযুক্ত করেছি।’
ভারতের আরেক শহর ব্যাঙালুরু গত বছর থেকে শহরের রাস্তায় নিরাপদে গাড়ি চালনার ওপর কাজ করে যাচ্ছে।
সেখানে পাঁচ নাবালক গাড়ি নিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ কসরত দেখিয়ে ফেসবুকে সেই ভিডিও পোস্ট করে। তাদের সবার বয়স ১৮ বছরের নিচে হওয়ায় পুলিশে তাদের অভিভাবকদের গ্রেপ্তার করে।
অদক্ষ চালক, খারাপ রাস্তাঘাট ও যানবাহনের কারণে ভারতে সড়ক দুর্ঘটনা এক সাধারণ ব্যাপারে পরিণত হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা এর জন্য অপরিকল্পিত রাস্তাঘাটকে দায়ী করেন। সরকারের এক তথ্যে দেখা যায়, ২০১৬ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় দেশটিদে দেড় লাখের বেশি মানুষ নিহত হয়েছে।