স্কুলে
কিশোর বাংলা প্রতিবেদন: স্কুলে শিশুর লেখাপড়ার ফল দিন দিন খারাপ হচ্ছে৷ কিন্তু ভেবে দেখুন, এ জন্য স্কুল বা বাড়ির পরিবেশ কোনোভাবে দায়ী কি না৷ আপনার, মানে অভিভাবক এবং শিক্ষকের কোনো ভুল আচরণ, অজানা সমস্যা শিশুকে নিভিয়ে দিচ্ছে কি না৷
শিক্ষক বা শিক্ষিকা যদি ছাত্র বা ছাত্রীকে পছন্দ না করেন অথবা শিশুটিই যদি শিক্ষক বা শিক্ষিকাকে অপছন্দের তালিকায় ফেলে দেয়, তবে শিশুর পড়াশোনায় চোরাবালির স্তূপ পড়ে যাবে৷
কোনো কোনো শিক্ষকের এবং অভিভাবকেরও পাঠদানের অভ্যাসে থাকে মারাত্মক ভুল পদ্ধতি৷ স্কুলে শিশুর আগ্রহ হারিয়ে ফেলার অন্যতম কারণ হলো শিশুকে যথাযথভাবে উজ্জীবিত করতে না পারা—তার আগ্রহ জন্মানোর পথ খুলে না দেওয়া৷ যেকোনো বিষয় খেলাচ্ছলে, মজা করে পড়ানোর রীতি রপ্ত করা শিক্ষকের দায়িত্ব৷ গৎবাঁধা মুখস্থ রীতি থেকে বেরিয়ে ছবি-গল্প-গানসংবলিত পাঠদান আকর্ষণীয় হতে পারে৷
পড়া ধরা বা পরীক্ষার নিয়মটাও এমন হওয়া উচিত, যাতে শিশু একে ভয় না পায়৷ শিশুর দীর্ঘদিন বা প্রায়ই স্কুলে অনুপস্থিতি অনেক সময় মনোযোগ হারিয়ে ফেলার কারণ হয়ে দাঁড়ায়৷ বাড়ির বা অভিভাবকদের নানা সমস্যার কারণে যেসব শিশু ঘন ঘন স্কুল কামাই করে, তাদের মনোযোগ অন্য শিশুদের তুলনায় কমে যেতে পারে৷
অনেক সময় স্কুলে যেতে অনীহা প্রকাশও করতে পারে৷ গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, কয়েক দিনের জন্য ঘন ঘন স্কুল কামাই দীর্ঘ সময়ের একবার কামাইয়ের তুলনায় অনেক বেশি ক্ষতিকর৷ ঘন ঘন স্কুল বদলও শিশুর আবেগ-আচরণে প্রভাব ফেলে৷ শিশু হতভম্ব হয়ে যায় এই দেখে যে এখানে আর ওখানে পড়ানোর পদ্ধতি ভিন্ন রকমের৷
তার ওপর পরিচিত শিক্ষক ও বন্ধুদের হারিয়ে খানিকটা অসহায়ও বোধ করে৷ শিশুরোগ বিভাগ, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল|