পরিশ্রম

কিশোর বাংলা প্রতিবেদন: নিজেকে অন্যের চেয়ে দক্ষ করে তুলতে একাগ্রতার বিকল্প নেই। সফলতার জন্য প্রয়োজন ইচ্ছাশক্তি ও কঠোর পরিশ্রম। আর কিশোর বয়স থেকেই কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। বাবা-মায়েরা যদি ইতিমধ্যেই তাদের সন্তানদের মধ্যে সততা ও কঠোর পরিশ্রমের জন্য উপলব্ধিবোধ গেঁথে না দিয়ে থাকে, তাহলে নিশ্চিতভাবেই কিশোর বয়সে তাদের তা গেঁথে দেওয়া উচিত।ভবিষ্যতকে সুন্দর ও সফল করার জন্য কিশোরদের কয়েকটি বিষয়ের প্রতি বিশেষ নজর দিতে হবে ।

কঠোর পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসূতি। সৌভাগ্য নিয়েই পৃথিবীতে কোনো মানুষের জন্ম হয় না। কর্মের মাধ্যমে তার ভাগ্য গড়ে নিতে হয়। পরিশ্রমই সৌভাগ্য বয়ে আনে। উদ্যম, চেষ্টা ও শ্রমের সমষ্টিই সৌভাগ্যের চাবিকাঠি। কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে কঠিন কাজও সহজ হয়। জীবনে উন্নতি করতে হলে পরিশ্রমের কোনো বিকল্প নেই।

পরিশ্রম ছাড়া কেউ কখনো তার ভাগ্যকে গড়ে তুলতে পারেনি। সফলতার জন্য প্রতিভার সাথে প্রয়োজন ধৈর্য, প্রচণ্ড ইচ্ছাশক্তি ও পরিশ্রম। একাগ্রচিত্তে পরিশ্রম করে যান সফলতা একদিন আপনার দরজায় কড়া নাড়বে।

নিজ দায়িত্বের ব্যাপারে পরিপূর্ণ সচেতন হতে হবে । যে কাজটি করবে, তা সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা থাকতে হবে। ভাসা ভাসা ধারণা নিয়ে কাজ করলে সফল হওয়া যায় না। পেশাগত জ্ঞানকে সর্বোচ্চ কাজে লাগানোর জন্য এর যাবতীয় খুঁটিনাটি বিষয় আপনাকে আয়ত্ত করতে হবে। তাহলে তোমাদের পথচলা সুদৃঢ় ও পদস্খলনমুক্ত হবে। বেশি করে নিজেকে গুছিয়ে নিতে হবে।

বছরের শুরুতেই একটি বা দুটি ক্ষেত্র বেছে নিন যেগুলোর প্রতি সারা বছর বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে। সৃজনশীলতা জন্য একটি অন্যতম মৌলিক গুণ। হতে হবে পরিপক্ব, প্রতিষ্ঠানকে বেগবান করতে হলে নিত্যনতুন পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হয়।

সফলতার জন্য সততা একটি বড় গুণ। অসৎ হয়েও লাভ নেই। নিজের কাছে সততা সবচেয়ে বড় আত্মবিশ্বাস। সৎ মানুষকে সবাই বিশ্বাস ও সম্মান করে। আপনাকে সত্যবাদী হতে হবে এবং ওয়াদা করলে সেটা যে কোনো মূল্যে রাখার চেষ্টা করতে হবে।

বন্ধু তৈরি করতে হবে । মনে রাখতে হবে, সফলতা কখনো একা আসে না। কিন্তু কখনোই একা একা বড় কিছুই করতে পারবে না। সাফল্য দলগত পরিশ্রমের সমষ্টিগত ফল। তোমরা আগামীর দলনেতা। নেতৃত্বের জন্য তোমাদের অন্য মানুষের কাছ থেকে সম্মান ও বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করতে হবে। নিজের কথা বলার চেয়ে অন্যদের কথা শোনার অনন্য যোগ্যতা অর্জন করতে হবে।

আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞান আর উদ্ভাবনী প্রযুক্তির এই সময়ে আমাদের সামনে আছে অনেক সুযোগ। এ সুযোগকে আমাদের কাজে লাগিয়ে বড় কিছু করা সম্ভব।

যে কোনো বাধা-বিঘ্নকে মোকাবিলার সৎ সাহস থাকতে হবে। বাড়ি কিংবা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যেখানেই কোনো সমস্যা দেখবে তার মুখোমুখি হবে। মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে চিহ্নিত সমস্যাগুলোর মোকাবিলা করতে হবে।

LEAVE A REPLY