এই সময়ে
হোম / কিশোর সমস্যা / পাচারসহ নানা ঝুঁকিতে অনাথ রোহিঙ্গা শিশুরা
রোহিঙ্গা

পাচারসহ নানা ঝুঁকিতে অনাথ রোহিঙ্গা শিশুরা

কিশোর বাংলা প্রতিবেদন: মা-বাবা হারানো রোহিঙ্গা শিশুদের চোখে-মুখে এখনও আতঙ্কের ছাপ স্পষ্ট। এক বছর আগে মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও স্থানীয় লোকজনের অত্যাচার-নির্যাতনের শিকার হয়ে তারা মাতৃভূমি রাখাইন ছেড়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।
পরিবার-পরিজন হারিয়ে অনাথ হয়ে পড়া এসব শিশু এখন পাচার, বাল্যবিবাহ ও নানা ধরনের নির্যাতনের ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। তারা মানবতাবিরোধী অপরাধেরও শিকার হচ্ছে। কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে অভিভাবকহীন প্রায় ৩০ হাজার শিশু রয়েছে।
সেভ দ্য চিলড্রেনের সর্বশেষ গবেষণা থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।ক্যাম্পগুলোতে এসব শিশু পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন করলেও তাদের মনে কোনো আনন্দ ছিল না। এ সময় তাদের স্মৃতিপটে ভেসে উঠে ভয়ানক সব ঘটনা। মা-বাবাকে হারানোর বেদনাদায়ক স্মৃতি। মা-বাবা হারা, মা অথবা বাবা হারা শিশুরা দিনটিতে চোখের জল ধরে রাখতে পারেনি। তারা অঝোরে কেঁদেছে। তাদের চোখে-মুখে আজও আতঙ্কের ছাপ স্পষ্ট হয়ে আছে।
সেভ দ্য চিলড্রেনের গবেষণায় বলা হয়, কক্সবাজারে আশ্রয় নেয়া প্রতি দু’জনের মধ্যে একজন শিশু ভয়াবহ সহিংসতার কারণে মাকে হারিয়েছে ও পরিবারহীন হয়েছে। এতে বলা হয়, এসব শিশু আজও সেই ভয়ংকর স্মৃতি বয়ে বেড়াচ্ছে। তারা খাদ্যাভাব, শোষণ ও নির্যাতনের ঝুঁকিতে রয়েছে। সেভ দ্য চিলড্রেনের কক্সবাজারের মিডিয়া ও কমিউনিকেশন কো-অর্ডিনেটর ফারজানা সুলতানা জানান, ১৩৯টি অভিভাবকহীন রোহিঙ্গা শিশু নিয়ে তারা গবেষণা করেছেন। মিয়ানমারের সহিংসতার পর শিশুদের নিয়ে এটি সবচেয়ে বড় গবেষণা। নৃশংস ঘটনায় ৬৩ শতাংশ শিশু অভিভাবককে হারিয়েছে। বাংলাদেশে আসার পথে ৯ শতাংশ শিশু পরিবার ও অভিভাবককে হারিয়েছে। ৫০ শতাংশ শিশু বলেছে, অভিভাবক ও পরিজনদের হত্যা করা হয়েছে। তাদের অনেকে আবার হত্যাকাণ্ডের প্রত্যক্ষদর্শী।

আরও দেখুন

ফাস্ট ফুড

ফাস্ট ফুড শিশু-কিশোরদের মৃত্যুঝুঁকি বাড়াচ্ছে

কিশোর বাংলা প্রতিবেদনঃ খেতে সুস্বাদু হওয়ায় গোটা বিশ্বে ফাস্ট ফুড এখন জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থান করছে। …