দিশারী
কিশোর বাংলা প্রতিবেদন: চাঁদপুরে ছিন্নমূলে বেড়ে উঠা শিশুদের স্বাক্ষরতার ব্যবস্থা করে দিচ্ছে আলোর দিশারী নামক একটি ভ্রাম্যমান বিদ্যাপীঠ। দারিদ্রতা অনেক শিশুকে করেছে ঘর ছাড়া, আবার দারিদ্রতাকে জয় করে পৃথিবীতে অনেকে হয়েছেন বিখ্যাত। আর এই সব কিছুর সাথে শিক্ষা ছিল মিশে।
চাঁদপুর সদরের বড়স্টেশন মোলহেডের পাশেই তাঁদের স্কুল। ২০১৬ সাল থেকে শুরু হয় খোলা আকাশের নিচে পাঠক্রম। একসময় রেলওয়ে কোয়াটার এর সামনে বিদ্যাপীঠটির কার্যক্রম পরিচালিত হত। বর্তমানে বড়স্টেশন রক্ত ধারার পাশে প্রতিদিন বিকাল বেলা চলে পাঠকার্যক্রম।
বিদ্যালয়টিতে যারা শিক্ষা গ্রহন করে তারা সবাই দরিদ্র ঘরের সন্তান। লেখাপড়া চালিয়ে নেয়ার মত সামর্থ্য নেই তাদের পরিবারগুলোর। আবার অনেকে শিক্ষার প্রতি অনুরাগীও না। তাই এসব শিশুদের শিক্ষার প্রতি অনুরাগী করে গড়ে তোলার নিমিত্তে বিদ্যাপীঠটি স্থাপন করা হয়।
অক্ষর-জ্ঞান হীন শিশুদের সাক্ষরতা দানে ২০১৬ সাল থেকে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে আলোর দিশারী নামক ভ্রাম্যমান বিদ্যালয়টি। এখানে সেইসব শিশুদের পাঠশালায় অন্তর্ভুক্ত করা হয় যাদের পরিবার পড়ালেখার খরচ বহনে অক্ষম।
তাদের শিক্ষার প্রাথমিক ধারণা, স্কুলে ভর্তি উপযোগী করার জন্য যা যা শেখানো প্রয়োজন তা-ই শিক্ষা দিয়ে থাকে। এখানে বই, খাতা, কলম সবই দেয়া হয় ।মাঝে মাঝে পথচারীরাও শিক্ষার্থীদের বই, খাতা কেনার জন্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন।