এই সময়ে
হোম / কিশোর সংবাদ / জার্মানিতে নিখোঁজ হাজারও শরণার্থী কিশোর
কিশোর

জার্মানিতে নিখোঁজ হাজারও শরণার্থী কিশোর

কিশোর বাংলা প্রতিবেদনঃ শরণার্থীদের গ্রহণ করার পর থেকেই জার্মানিতে কয়েক হাজার শিশু কিশোর নিখোঁজের খবর পাওয়া যাচ্ছে৷ বিশেষজ্ঞরা আশা প্রকাশ করছেন তারা গুরুতর কোনো বিপদে পড়েনি৷ তবে তাদের নিরাপদ আবাসন ও নিয়মিত খোঁজ খবরের জন্য জার্মান সরকারকে আরও সচেষ্ট হওয়ার অনুরোধ করেছেন৷

জার্মানির কেন্দ্রীয় অপরাধ তদন্ত অফিসের এক জরিপে দেখা যায়, ২০১৭ সালের প্রথম দিকে নিখোঁজ শিশু-কিশোরের সংখ্যা ৮ হাজার ৪০০ ছিল৷ ২০১৯ সালের প্রথম মাসেই নিখোঁজ ৩ হাজার ২০০জন৷

অভিবাবকহীন শরণার্থীদের জন্য নিয়োজিত সেবামূলক সংগঠন ফেডারেল অ্যাসোশিয়েশন ফর আন-অ্যাকম্প্যানিড রিফিউজি মাইনরের কর্মকর্তা টোবিয়াস ক্লাউস বলেন, ‘‘নিখোঁজের সংখ্যা কমিয়ে আনা গেছে৷ তবে, মনে রাখতে হবে শরণার্থী প্রবেশের সংখ্যাও অধিক হারে কমেছে৷”

তিনি আরও বলেন, ‘‘এই জরিপের জন্য ৭২০জন সেবাদানকারী ব্যক্তি কাজ করছেন এইসব শরণার্থী শিশুদের জন্য৷ সেই সব কর্মীদের দাবি, শরণার্থী কিশোর নিখোঁজের সংখ্যা কমেছে কিন্তু একেবারে বন্ধ হয়নি৷ প্রায়শই নিখোঁজ হচ্ছে৷ অনেকে একেবারে উধাও হয়ে যাচ্ছে যাদের হদিসও পাওয়া যাচ্ছে না৷”

ক্লাউস জানান, বেশিরভাগই নিখোঁজ হচ্ছে সাময়িক আশ্রয়কেন্দ্র থেকে৷ অর্থাৎ তারা শরণার্থী জীবনের শুরুতেই নিখোঁজ হচ্ছেন৷ তিনি এর কারণ ব্যাখ্যা করে বলেন, নিখোঁজ শিশুদের বয়স ১৪-১৭ এর মধ্যেই বেশি৷ তারা প্রাথমিকভাবে জার্মানিতে আশ্রয় নিলেও পরে ইউরোপের অন্যদেশে আত্মীয় বা পরিচিত কারও পরিবারের সঙ্গে নিজেদের সিদ্ধান্তেই চলে যাচ্ছে৷ এটিকে নিখোঁজ না বলে অবস্থান পরিবর্তন বলা যায়৷

উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘‘ধরা যাক একটি ছেলে মিউনিখে প্রবেশ করেছে, কিন্তু তার আত্মীয় থাকে হামবুর্গে৷ সে হামবুর্গ চলে গেলো৷ আনুষ্ঠানিকভাবে গেলে প্রতিষ্ঠানের পক্ষেও হিসাব রাখা সহজ হয়, দুই স্থানে শরণার্থী সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান হিসাবও রাখতে পারে৷ তবে সচরাচর এমনটি ঘটে না বলেই নিখোঁজের সংখ্যা বেশি হচ্ছে৷”

আরও দেখুন

বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা

বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা বায়েজিদ থানা কমিটি গঠন

কিশোর বাংলা প্রতিবেদনঃ শুক্রবার ২৫ অক্টোবর বিকেলে নগরীর অক্সিজেন হোটেল জামানে বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা …