এই সময়ে
হোম / পড়াশুনা / চুয়াডাঙ্গায় চালু হয়েছে স্মার্ট স্কুল
স্মার্ট স্কুল

চুয়াডাঙ্গায় চালু হয়েছে স্মার্ট স্কুল

কিশোর বাংলা প্রতিবেদন: চুয়াডাঙ্গায় চালু হয়েছে স্মার্ট স্কুল। এর প্রতি ক্লাসরুমে আছে এলইডি মনিটরসহ কম্পিউটার। আছে ল্যাপটপ ও ইন্টারনেট সংযোগ। এলইডি মনিটরেই লেখাপড়া করানো হচ্ছে। পাঠসংশ্লিষ্ট বিষয় দেখানো হয় ইউটিউব থেকে।

পীরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টিকে ‘আলোকিত স্মার্ট স্কুল’ ঘোষণা করা হয়েছে।

স্কুল ভবন ও বাউন্ডারি প্রাচীর দৃষ্টিনন্দন রঙে সাজানো হয়েছে। ২৬৬ জন শিক্ষার্থীর প্রত্যেককে দেওয়া হয়েছে স্মার্ট কার্ড। আগে রোল কল করা হতো। এখন হয় না। শিক্ষার্থীদের ইউনিফর্ম পরে স্মার্টকার্ড গলায় ঝুলিয়ে বিদ্যালয়ে আসতে হয়। সারিবদ্ধভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে কার্ড পাঞ্চ করলেই তাদের হাজিরা স্বয়ংক্রিয়ভাবে হয়ে যাবে।

লেখাপড়ার পদ্ধতিও আলাদা। শিশু শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত সব ক্লাসেই আছে একটি করে কম্পিউটার। আছে আধুনিক মনিটর। কম্পিউটারে ইনস্টল করা আছে পাঠ্য বই। আছে পাঠ্য বই অন্তর্ভুক্ত ছড়া, কবিতা ও অন্যান্য পড়াবিষয়ক কার্টুন। কোনো একটা ছড়া শোনার সঙ্গে সঙ্গে শিশুরা মনিটরে দেখতে পায় এর ভিডিও। একাধিকবার যখন দেখানো হয়, তখন সহজেই ওই ছড়াটি তাদের মুখস্থ হয়ে যায়।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার পীরপুর গ্রামে ১৯০০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় পীরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়। দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭৩ সালে একে সরকারীকরণ করা হয়। বিদ্যালয়ের নাম রাখা হয় পীরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। চলতি বছরের ১৫ নভেম্বর এ বিদ্যালয়কে ‘আলোকিত স্মার্ট স্কুল’ হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। একে আলোকিত স্মার্ট স্কুল হিসেবে রূপান্তরের উদ্যোগ নেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ওয়াশীমুল বারী। আর আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা দেন চুয়াডাঙ্গার জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাস।

আরও দেখুন

বরিশাল

এইচএসসিতে বরিশালে বৃত্তি পাচ্ছেন ৬১৫ শিক্ষার্থী

কিশোর বাংলা প্রতিবেদন: বরিশাল বোর্ড থেকে ২০১৮ সালে উচ্চমাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় …