কন্যাশিশু

কিশোর বাংলা প্রতিবেদন: মেয়েদের শিক্ষার অধিকার, আইনি সহায়তা ও অধিকার, চিকিৎসা সুবিধা ও বৈষম্য থেকে সুরক্ষা, নারীর বিরুদ্ধে হিংসা ও বলপূর্বক বাল্যবিবাহ বন্ধে কার্যকর ভূমিকা পালনের উদ্দেশ্যে সূচনা করা হয় কন্যাশিশু দিবসের। আজ আন্তর্জাতিক কন্যাশিশু দিবস।

পৃথিবীজুড়ে লিঙ্গ বৈষম্য দূর করতে ২০১২ সালের ১১ অক্টোবর প্রথম এ দিবসটি পালন করা হয়। জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রগুলো প্রতিবছর এ দিবসটি পালন করে থাকে।

কন্যাশিশুইউনেস্কোর মহাসচিব মিজ ইরিনা বোকোভারের দেয়া বার্তা অনুযায়ী আন্তর্জাতিক কন্যাশিশু দিবস ২০১৭-এর প্রতিপাদ্য ‘এমপাওয়ার গার্লস : ইমারজেন্সি রেসপন্স অ্যান্ড রেসিলেন্স প্ল্যানিং’। অর্থাৎ, ‘মেয়েদের ক্ষমতায়নে জরুরি সহায়তা ও প্রতিরোধ পরিকল্পনা’। বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার উদ্যোগে বাংলাদেশেও দিবসটি পালন করা হচ্ছে।

এ উপলক্ষে ব্র্যাক, এসিড সারভাইভারস ফাউন্ডেশন এবং অস্ট্রেলীয় হাইকমিশনের যৌথ উদ্যোগে আজ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটের থ্রিডি সেমিনার হলে এক আলোচনা সভা ও পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে ভূমিকা রাখার স্বীকৃতি হিসেবে দেশের ৬ কন্যাশিশুকে পুরস্কার দেয়া হবে।

কানাডা প্রথম জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস পালনের প্রস্তাব দেয়। পরে ২০১১ সালের ১৯ ডিসেম্বর তারিখে জাতিসংঘের সাধারণ সভায় এ প্রস্তাব গৃহিত হয়। এরই ফলশ্রুতিতে ২০১২ সালের ১১ অক্টোবর তারিখে প্রথম আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস পালন করা হয়। প্রথম আন্তর্জাতিক কন্যাশিশু দিবসের প্রতিপাদ্য ছিল ‘বাল্যবিবাহ বন্ধ করা’।

কন্যাশিশুপ্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের কমিউনিকেশন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস উপলক্ষে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ “গার্লস টেক ওভার” কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

এ কর্মসূচির মাধ্যমে একজন কিশোরী বা যুব নারীকে নেতৃত্ব প্রদানকারীর ভূমিকা পালন করতে সহায়তা করা হয়। এতে তাদের মধ্যে বড় হওয়ার,ভালো কিছু করার স্বপ্ন তৈরি হয়, আত্মবিশ্বাস বাড়ে।

প্ল্যানের কমিউনিকেশন বিভাগের এক কর্মকর্তা বাসসকে জানান, এ বছর গার্লস টেকওভার কর্মসূচিতে কিশোরী ও যুব ১৭ জন মেয়েকে এ কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এর মধ্যে দেশের রংপুর বিভাগের দিনাজপুর, নীলফামারী, লালমনিরহাট ও রংপুর জেলায় সরকারি কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন উপজেলার ইউএনও, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও নিজ সংস্থার প্রধানের দায়িত্ব পালনে ১৫ জন মেয়েকে সহায়তা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সাল থেকে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল গার্লস টেকওভার কর্মসূচি হাতে নেয়।